বাছুর পালন নিয়ে কিছু প্রশ্নোত্তর

0
69
বাছুর পালন নিয়ে কিছু প্রশ্নের উত্তর

জাতীয় অর্থনীতিতে প্রাণী সম্পদের গুরুত্ব অপরিসীম। দারিদ্র বিমোচন, আত্ম কর্মসংস্থান তথা মানব সম্পদ উন্নয়নে প্রাণী সম্পদ খাত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে।

বাছুর পালন নিয়ে কিছু প্রশ্নোত্তর নিম্নে

১. বাছুর পালনের গুরুত্ব কতটুকু?

• বাছুরের মৃত্যুর হার কমাতে এবং সুস্থ সবল রাখতে বাছুর পালনে পরিচর্যার গুরুত্ব অনেক।

২. বাছুরের যত্ন না নিলে ভবিষ্যতে কি সমস্যা হতে পারে?

• আজকের বাছুর আগামীতে বড় হয়ে দুধালো গাভী বা ষাঁড় হবে।

৩. বাছুর পালনের প্রভাব কেমন হতে পারে?

• বাছুর ভালো স্বাস্থ্যবান হলে পরবর্তীতে গাভী হয়ে আশানুরূপ দুধ দেবে এবং ষাঁড় হলে প্রয়োজনে প্রজনন কাজে ব্যবহার করা যাবে।

৪. কখন থেকে বাছুরের যত্ন আরম্ভ করতে হবে?

• মায়ের গর্ভে থাকতেই পরোক্ষভাবে যত্ন আরম্ভ করতে হবে।

৫. গর্ভের কোন সময় যত্ন নিতে হবে?

• গর্ভধারণের শেষ তিন মাসে পর্যাপ্ত সুষম পুষ্টিকর খাদ্য গর্ভবতী গাভীকে খাওয়াতে হবে।

৬. এতে বাছুর কি সুবিধা পাবে?

• গাভীর নাড়ীর মাধ্যমে বাছুর প্রয়োজনীয় পুষ্টি গ্রহণ করে সুস্থ সবল অবস্থায় শারিরীকভাবে বৃদ্ধি পাবে।

৭. পরিমিত পুষ্টি সরবরাহ ছাড়া গর্ভবতী গাভীর জন্য আর কি করতে হবে?

• গর্ভকালের শেষ তিন মাসে ধীরে ধীরে দুধ দোহন বন্ধ করতে হবে।

৮. প্রসবে বিঘ্নতা দেখা দিলে কি করতে হবে?

• প্রসবে অস্বাভাবিক লক্ষণ দেখা দিলে অবশ্যই নিকটস্থ পশু চিকিৎসকের সহযোগিতা নিতে হবে।

৯. বাছুর এবং গাভীর বিছানা কি রকম হতে হবে?

• শুকনো খড় পুরু করে বিছিয়ে খুব কাছাকাছি পর্যাপ্ত পরিমাণে হালকা ঠান্ডা বিশুদ্ধ পানি রাখতে হবে।

১০. বাছুর ভূমিষ্ট হওয়ার সাথে সাথেই কি করতে হবে?

• শুকনো খড়কুটা, চট বা ছালার উপর রাখতে হবে। নাক ও মুখ হতে নিস্তৃত লালা পরিষ্কার করতে হবে।

১১. নাকের ও মুখের লালা পরিষ্কার না করলে বাছুরের কি ক্ষতি হবে?

• শ্বাসরুদ্ধ হয়ে বাছুর মারা যাওয়ার সম্ভাবনা থাকে।

১২. বাছুরের স্বাভাবিক শ্বাসপ্রশ্বাস না হলে কি করতে হবে?

• বাছুরের নাকে ও মুখে এবং নাভীতে ফুঁ দিলে প্রায় সময়েই শ্বাসপ্রশ্বাস চালু হয়ে যায়। কোন কোন ক্ষেত্রে ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী শ্বাস বৃদ্ধির ঔষধ ব্যবহার করা ভালো।

১৩. বাছুরের নাড়ি কিভাবে কাটতে হয়?

• চামড়া থেকে ১-১.৫ ইঞ্চি রেখে কেটে যেকোন জীবাণুনাশক ব্যবহার করা জরুরী। নাভীতে যেন ধুলা-বালি কিংবা ময়লা না লাগে সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে।

১৪. গাভী বা মালিকের কি করণীয় থাকে?

• শুকনা খড় বা কাপড় দ্বারা শরীর মুছে দেবেন। হালকা গরম পরিষ্কার পানি ঢেলে অথবা অন্য যেকোন সহজপ্রাপ্য জীবাণুনাশক-মিশ্রিত পানি দিয়ে বাছুরের শরীর মুছে দেবেন না।

১৫. প্রসবের পরপরই বাছুরকে কি খাওয়াতে হবে?

• বাছুর দাঁড়ানোর চেষ্টা করার সাথে সাথেই তাকে শালদুধ খাওয়াতে হবে।

১৬. প্রতিটি বাছুরের জন্য কতটুকু জায়গার প্রয়োজন?

• প্রতিটি বাছুরের জন্য ৬×৪ ফুট মাপের জায়গা প্রয়োজন।

১৭. বাছুরের ঘরের বিছানা কি রকম হওয়া প্রয়োজন?

• পর্যাপ্ত পরিমাণ আলো-বাতাসসহ স্বাস্থ্য ব্যবস্থা ঠিক রেখে শুকনা টুকরো খড় বা চট বিছানো যেতে পারে, ঘরের চোনা-গোবর সকাল বিকালে নিয়মিত সরাতে হবে।

১৮. সবল এবং দূর্বল বাছুর কি ঘরে এক সাথে রাখা যেতে পারে?

• সবল এবং দূর্বল বাছুর সব সময় আলাদা রাখতে হবে যাতে নিজেদের খাদ্য ও পানি নিজেরা খেতে পারে।

১৯. বাছুরের অন্যান্য সাধারণ যত্ন কি হতে পারে?

• সময়মত খাদ্য ও পানি সরবরাহপূর্বক যথাযথ সময়ে বয়সের ভিত্তিতে সকল রোগের জন্য টিকা প্রদান করতে হবে।

২০. বাছুরকে খাওয়ানোর নিয়ম কি কি হতে পারে?

• জন্মের পর ৭ দিন, ৭ দিন থেকে দুধ ছাড়ানো (৫-৬ মাস) এবং দুধ ছাড়ানোর পরবর্তীতে অন্যান্য খাবার যথাযথভাবে খাওয়াতে হবে।

২১. জন্মের পর সাত দিন কি কি খাওয়াতে হবে?

• কাঁচা দুধ বা শালদুধ খাওয়াতে হবে এবং অন্য কিছু না খাওয়ালেও হবে।

২২. এক সপ্তাহ থেকে ৫-৬ মাস পর্যন্ত বাছুরকে কি ধরণের খাবার খাওয়াতে হবে?

• প্রয়োজনীয় আমিষ (১৬-১৮%), আঁশ-জাতীয় খাবার (৭-১০%), ক্যালসিয়াম (০.৬-০.৭%), ফসফরাস (০.০৪-০.০৫%), ম্যাগনেসিয়াম (০.১৫-০.২০%) এবং লবণ (০.০৭-০.০৮%) সমৃদ্ধ প্রাথমিক খাদ্য (কাফ স্টার্টার) খাওয়াতে হবে।

২৩. জন্মের পর তিন মাস পর্যন্ত বাছুরকে কিভাবে দুধ খাওয়াতে হবে?

• প্রথম সপ্তাহের শেষ থেকে প্রতি ১০০ কেজি দৈহিক ওজনের জন্য ১০ কেজি হারে প্রতি সপ্তাহে ২ কেজি হিসাবে কমিয়ে ১২ সপ্তাহে দুধ খাওয়ানো বন্ধ করতে হবে। দ্বিতীয় সপ্তাহ থেকে প্রতি সপ্তাহে ৫০০ গ্রাম হিসাবে দানাদার খাদ্য বাড়াতে হবে এবং এর সাথে পর্যাপ্ত কচি ঘাস দিতে হবে।

২৪. বাছুরকে কি পরিমাণে দুধ খাওয়াতে হবে?

• প্রতি ১০০ কেজি দৈহিক ওজনের জন্য ৮ কেজি হিসাবে দুধ খাওয়াতে হবে অর্থাৎ ৪০ কেজি ওজনের বাছুরকে ৩-৩.৫ কেজি দুধ খাওয়াতে হবে। এবাবে তিন মাস পর দুধ ছাড়াতে হবে।

২৫. বাছুরকে কি পরিমাণে খড় খাওয়াতে হবে?

• দৈহিক ওজনের ১.৫% হিসাবে তিন মাস পর থেকে ঘাস/খড় খাওয়াতে হবে।

২৬. ছয় মাসের পর থেকে বাড়ন্ত বাছুরকে কি পরিমাণ দানাদার খাদ্য খাওয়াতে হবে?

• দৈহিক ওজনের ১% হিসাবে দানাদার খাদ্য হিসাবে ইউ.এম.এস.(ইউরিয়া-মোলাসেস-স্ট্রসহযোগে প্রস্তুত সংরক্ষিত খড়) খাওয়ানো যেতে পারে।

২৭. বাছুরের সাধারণত কি কি রোগ হয়?

• পেট ফাঁপা, ডিপথেরিয়া, এফএমডি, বদহজম, উদরাময়, নিউমোনিয়া, পাতলা পায়খানা, কোষ্ঠকাঠিন্য, সর্দি কাশি, উঁকুন, আঁঠালি, কৃমি, গলাফুঁলা ইত্যাদি।

২৮. কি কি কারণে সাদা উদরাময় রোগ হতে পারে?

• খারাপ ব্যবস্থাপনা, নিয়ম বহির্ভূত কৃত্রিম উপায়ে খাওয়ানো, শালদুধের অভাব, অতিমাত্রায় ও অনিয়মিতভাবে দুধ খাওয়ানো, অত্যধিক ঠান্ডা দুধ খাওয়ানো, রসদে সবুজ খাদ্যের স্বল্পতা ইত্যাদি কারণে এবং এসকারেসিয়া কলাই নামক জীবাণু দ্বারা সাধারণত মানুষ বা পশুর খাদ্যনালীতে এ রোগ হতে পারে।

২৯. সাদা উদরাময় রোগ কিভাবে চেনা যাবে?

• ঘনঘন মল ত্যাগ, চালের পানির মত পাতলা দূর্গন্ধযুক্ত পায়খানা, প্রথম দিকে জ্বর হয়ে পরে স্বাভাবিক মাত্রার নিচে তাপমাত্রা নেমে যায়, খাওয়াতে অরুচি এবং আস্তে আস্তে নিস্তেজ হয়ে বাছুর মারা যায়।

৩০. সাদা উদরাময় রোগের চিকিৎসা ও প্রতিকারের উপায় কি?

• লক্ষণ বুঝার সাথে সাথে ২৪ ঘন্টার মধ্যে খাদ্য বন্ধ করতে হবে। সামান্য গরম পানিতে গম অথবা ভূট্টার কুঁড়া খাওয়ানোর পাশাপাশি দুধ খাওয়ানোর পরিমাণ বাড়াতে হবে। স্যালাইন ও পরামর্শ অনুযায়ী সালফার-জাতীয় ট্যাবলেট বা ক্যাপসুল খাওয়াতে হবে বা ইনজেকশন দিতে হবে। জন্মের পরপরই শালদুধ খাওয়াতে হবে এবং জীবাণুমুক্ত ও পরিষ্কার জায়গায় বাছুরকে রাখতে হবে।

৩১. নিউমোনিয়া রোগের সাধারণ লক্ষণসমূহ কি কি?

• শ্বাস-প্রশ্বাসের মাত্রা বাড়ে, শ্বাস-প্রশ্বাসে অস্বাভাবিক শব্দ হয়, জ্বর হয়, সর্দি বাড়ে ও অবস্থার প্রেক্ষাপটে লক্ষণ ভিন্ন হতে পারে। নিউমোনিয়ার অপর নাম শ্বাস রোগ বা পাঁজর ব্যথা।

৩২. নিউমোনিয়া রোগের চিকিৎসা কি হতে পারে?

• পশু-চিকিৎসকের পরামর্শমতে অতি সাবধানতায় বাছুরের শিরায় অথবা মাংসপেশীতে এন্টিবায়োটিক ইনজেকশন দিতে হবে ও একই সাথে এন্টিহিস্টামিনিক ইনজেকশন নির্ধারিত মাত্রায় প্রয়োগ করতে হবে।

৩৩. ডিপথেরিয়া রোগ বলতে কোন রোগকে বুঝায়?

• ডিপথেরিয়া রোগটি স্ফেরোফোরাস নেক্রোফেরাস জীবাণুর সৃষ্ট একটি মারাত্মক সংক্রামক ব্যাধি যার মাধ্যমে তিন মাসের বাছুরের মুখগহ্বর এবং বেশি বয়সের বাছুরের ল্যারিংস আক্রান্ত হয়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here